ঘরে বসে হাতের কাজ করে ইনকাম

আমি একটা অন্যরকম বিষয় নিয়ে কথা বলতে চাচ্ছিলাম (ঘরে বসে হাতের কাজ করে ইনকাম ) আর কি আর তা হচ্ছে হস্তশিল্পের মাধ্যমে কিভাবে ঘরে বসে আর কি আর করা যায় আর তার আগে আমি আরো অনেক কথাই আপনাদেরকে বলতে চাই তা হচ্ছে আর যেন আগে কি হয় যে একটা মেয়ে বিয়ের পরে পুরোপুরি সংসারী হয়ে যায় দেখা যায় যে সংসার বাচ্চাকাচ্চা এগুলো সামলে বাইরে কাজ করাটা আসলেই হয়ে ওঠে না এই সময় কি হয় তারা একেবারেই গৃহিণী হয়ে যায় একেবারে ঘরোয়া ভাবে থাকতে পছন্দ করে আর সম্পূর্ণভাবে আরকি হাজবেন্ডের উপরে ডিপেন্ড হয়ে যায় আমার আমার কথা হচ্ছে যে হাজব্যান্ড এর উপর ডিপেন্ড করে কাছে খুব খারাপ সেটা একেবারেই নয় খুব খারাপ কি আমার মনে হয়েছে একটুও খারাপ নয় সেটা অবশ্যই দুজনে আন্ডারস্ট্যান্ডিং এর উপর ডিপেন্ড করে তাতে কিছু করা নিজে স্বাবলম্বী হওয়া অনেক বেশি দরকারি

একটা মেয়ের জন্য যেহেতু আমি বাইরে কাজ করতে পারো না অনেকেই আছে কিন্তু বাচ্চা ছেলেদের সাথে থাকে এজন্য দেখা যাচ্ছে অনেক সময় অনেক কিছু নিয়ে অনেক অনেক মেয়েরাই আর্কেটাইপ মানুষগুলোর জন্য আপনারা দেখতে পাচ্ছেন না অনেক কিছু হাতের কাজের কিছু জিনিসপত্র আপনাদের সাথে শেয়ার করেছি এই জিনিসগুলো কেন শেয়ার করেছি সেটা তো আপনাদের অবশ্যই দেরি হচ্ছে না আর বুঝতে পারছেন না যে আমি আসলে কি বলতে চাচ্ছি আর আমার যে কাজগুলো সেটাই আমি শেয়ার করছি আর সবকিছু আসলে আমার কাছে নাই অনেক কিছু আছে যেটা মিছিল করে দিয়েছি কিংবা গিফট করে ফেলেছি এই পার্কে এভাবে হাতের কাজ করেও কিন্তু আপনারা আর ঘরে বসেই আর কি টাকা আর্ন করতে পারেন এটা অনেকেই ব্যাপার এখনো অনলাইনে চলছে আর এখন সবাই অনেক ব্যবসা করছে অনেক অনেক ধরনের তার ভিতরে দেখা যাচ্ছে যে সবকিছুই মেয়েরা কি বাইরে থেকে প্রোডাক্ট থেকে শুরু করে নিজের হাতে কাজ করে অনেক কিছু করতে পারে এগুলো করতে গেলে যেটা হয় সবার আগে যেটা প্রয়োজন হয় একটা পেজের আইডি থেকে যেমন আপনার ফেসবুক থেকে আপনি একটা ফেসবুক প্রোফাইল থেকে একটা পোস্ট করতে পারিনি যে আপনি আপনার তৈরি দেখাতে পারেন বিভিন্ন জায়গায় করতে পারেন তো একদিন দুইদিন পরে দেখবেন সেটা আসলে সবার কাছে পরিচিত হয়ে গিয়েছে

আর যখন যেটা পরিচিত হয়ে যায় তখন দেখা যাবে অনেকটাই এবার আসি আমি কি টাইপ করা যায় এই ধরনের জামা গুলো আপনারা হাতের কাজ করতে পারেন হাতের কাজ করেছেন করতে পারিনি ঠিক আছে যখন নতুন কাজ শুরু করা হয় তখন অনেকেই এভাবে যে আমি এটা করতে পারব আমার মনে হয় যে আসলে সব কিছুর উপরে হতে হবে আপনার হাতের কাজ তেমন আপনি কি কাজে পারদর্শী এটা আপনাকে সিলেক্ট করতে হবে আর আপনার যখন হাতের কাজের উপর আপনি নিজেই ডিপেন্ডেন্ট হতে পারবেনা এটা কোনো মিছিল করতে পারি এটা আমারই লাগছে তার মানে বাইরে আরো ভাললাগতে পারে এটা দেখে যে কেউ আকৃষ্ট হতে পারে তখন আপনি এটা নিয়ে কথা ভাবতে পারেন আমি আমার দেখা যাচ্ছে যে আমি পড়ালেখা শেষ করে একটা সাবজেক্টে অনার্স মাস্টার্স কমপ্লিট করে আমি আপনার মেরেছি আমি ভাবলাম যে আমি বাইরে থেকে যে জব করতে পারব না বাড়িতে জব করতে গেলে আমার আসলে হবে না আমি আমার সংসার জবাব সব একসাথে মেসেজ করতে পারবোনা

ঘরে বসে হাতের কাজ করে ইনকাম
ঘরে বসে হাতের কাজ করে ইনকাম

আর আমার বিশেষ করে আমার হাজবেন্ডের আগে টান্সফার বলছো তো আমি করতে পারি যদি আমার জবটা পার্মানেন্ট কথাও হয়ে যায় তাহলে আমরা কি একসাথে থাকতে পারবো না এইটাই চিন্তাভাবনার কি ছিল এজন্য আমি বাইরে যেতে চাইনি কখনো যেটা করে ফ্রিল্যান্সিং করতাম ফিল্ম চিনি আমি বেসেছিলাম যেটা আসলে খুব ভালো ছিল কিন্তু যখন আমি কল করলাম আমি জানলাম যে আমি টুইন বেবির মা হতে চলেছি তো ওই সময় যে আমার পক্ষে চেয়ারে বসে রাত জেগে কাজ করাটা আসলে খুবই কষ্টকর হয়ে যাচ্ছিল কারণ আপনি তো জানেনই ফ্রিল্যান্সিং ম্যাক্সিমাম কাজে দেশের বাইরে বাইরে কাজ করতে হয় তখন আপনি কাজ করবেন তখন ওদের টাইম আমাদের ট্রানসলাতে কাজ করতে হয় আর দিনে দেখা যায় কি করে রাত্রে আবার সারারাত জেগে আমি সারারাত জেগে কাজ করতাম

এটাও কিন্তু বেশ ছিল যাই হোক তারপরে আমি এত কন্টিনিউ করতে পারেনি এবং যখন ওরা আমিও গিয়েছিলাম তখন থেকে আমি এই কাজটা ছেড়ে দিয়েছিলাম আর ওই ওই দিনটাতে আমি একটু আদর করে সংসারের কাজ করতাম না আমি ফ্রি ছিলাম এই সময় যে আমার ভিতর খুব টাকার কি মনে হতো যে হয়তো আমি কিছু করতে পারছিনা আমি সবার থেকে ডিটেলসটা আছি আমি সবকিছু হারিয়ে ফেলেছি ভালো একটা মন মানসিকতা চলে আসো সময়টাতে আমি ওই সময় দেখলাম যে একটা বেবি আসবে আমার ঘরে এটা হচ্ছে আমার লাইফের সবথেকে হাবিব আর এটা হচ্ছে বর্তমানে আমি চেয়েছিলাম যে প্রত্যেকটা মুহূর্ত আমি নিজের মতো করে ইনজয় করবো প্রত্যেকটা মুহূর্ত আমি চাই যে তাদের সাথে থাকতে তাদের নিয়ে বাঁচতে কখনই তারা আমার কাছে মনে হয় তাদের দেখে কখনোই মনে না হয় যে আসলে তাদের জন্য আমি এটা করতে পারেনি

কিংবা আমার লাইফেও জমে আছে জানো আমার কখনও মনে হয় আমি সময় একটু যখন পড়তাম তখন করতাম সেটা আসলে আমি ছোটবেলা থেকেই করতে পছন্দ করতাম কিন্তু আজ যখন আমি ফ্রিল্যান্সিং করতাম তখন অনেকটা কমিয়ে দিয়েছিলাম কারন আমি ম্যানেজ করতে পারতাম না আর আমি আমার শুধু নিজের জন্যই আর কি কাজ করতাম এই সমাজে আমি আবার টুকটাক করে সেলাই শুরু করি বরিশালের শুরু করে শুধু সুতার সেলাই যেমন মানুষের কাজ কিংবা নতুন করে শুরু করি এই সময় আর তখনি দেখি যে আমার আশেপাশে যারা আছে কুরুশের জুতা পিটা সাধারণত এখানে সবাই এগুলো পছন্দ করে আর এগুলো দেখতে একেবারে ইউনিক হয় একেবারে বাজারের যা সচরাচর জুতা নির্বাচিত অন্যরকম হয় আমার কাজগুলো থেকে বেশ আগ্রহী হয়ে ওঠে আর আমাকে বলে যে আমাকে একটা করে দাও ওটা করে দাওতো পেছনদিকে যেতে হতো আমি ওদের বেশি বেশি গিফট করতাম এটা আমার আমার নিজে থেকে গিফট করতাম একদিন দুইদিন আমি দেখতাম যে আমার গিফট করলে শহরকে আমি গিফট করছে চাকরি করতে আমার টাইম যাচ্ছে একটা সুতার জুতা তৈরি করতে আমার টাইম যাচ্ছে আমার সুতার দাম যাচ্ছে সবকিছু মিলিয়ে খরচ হচ্ছে আমি বুঝতে পারি এজন্য আমি প্রথমে একটি করে এরকম করতে থাকি ঘরে জিনিসপত্রগুলো পাপোশ জিনিসপত্রগুলো আমি আদর পেতে থাকে

আর আমি ওই কাজগুলো করতে থাকি তো তারপরে দেখা যাচ্ছে যে আমি আমার অবশ্যই সুতার কাজ করি তখন হয়তো খুব পাকা মেয়ে কাজ জামার কাজ এটা অর্ডার দিয়েছি তখন আমি এটাও করতে থাকি আমি একটা পেজ খুলে তারপরে দেখি যে আমার জন্য একটা অর্ডার আসছে এবং যখন আমি পেজের আমার কাজগুলো শেয়ার করি তখন অনেকেই সেটা দেখেন পেজে লাইক দিয়ে আমার সাথে কন্টাক করে আমার কাছ থেকে এটাই তো আর জিনিসগুলো কিন্তু আক্রমণ হয় তো আমি একেবারেই তো করেছি আমি তার পুরো অনেকটাই আর কি ওই কাজগুলো করার চেষ্টা করতাম যে যাতে আমি দু একটা মানুষের সাথে অন্তত কথা বলতে পারি বাইরের জগত সম্পর্কে জানতে পারি তাদের পছন্দ-অপছন্দ এই সবকিছু যেন আমি জানতে পারি এর জন্য আমি এই সময়টাতেই টাইপ কাজগুলো করতাম যখন বের হলাম তখন দেখলাম যে আমার সময় হলে ঠিকই কিন্তু তারপরও আমার কিছু করতে ইচ্ছে হচ্ছে যে এমনটা যেন হয় যে আমার বেবি রওজাতে একটু বড় হয়

আর আমি ঠিক সে সময় নিজে কিছু ভালোভাবে আর কি করতে পারছি এই সময় আমি আমার যা কুরুশের কাজের চেষ্টা ছিল সেটাতে আর কে বেশি বেশি করে কাজ করে ছবি দিয়ে আর ওইটা তো আমি দিল্লিতে কাজ করি কাজ করে আমি মোটামুটি এখন বসে আছি কিভাবে কাজ করা যায় সেটা আমি আমার পরের পর্বে আপনাদের সাথে শেয়ার করব আজকে আমি শুধু এটুকু শেয়ার করতে চাচ্ছি যে একেই জমা করে কিন্তু আপনারাও ঘরে বসে আর্ন করতে পারেন দেখা যায় যে একটা কাজ কমপ্লিট করতে যদি আপনি চিনেন ভালো দেখে তাহলে দুই তিনশ টাকার কাপড় থেকে 50 টাকার ভিতরে ইউজ করলেই সুন্দর একটা জামা হয়ে যায়

এই জামাগুলো হাজার টাকার উপরে বিক্রি হয় আপনি বুঝতে পারছেন যে কত বেশি লাভ করা যায় খুব বেশি তাদের সংসারের কাজ করে থাকে সেটা তো আপনারা সেলাই করতে পারেন আমি আসলে এই জিনিসগুলো নিয়ে আপনাদের সাথে ডিসকাস করতে চাচ্ছিলাম কারণে কয়েক দিন আগে মনে হয়েছিল যে একটা আমার ফেসবুকে আমার অনেক সিনিয়র একটা ভাইয়া আমাকে নক দিয়ে পড়বে না তুমি এখন কি করো আমি বললাম আমি ফুলটা একটু হেসে বললেন ভালো যায় কেননা হাজব্যান্ড শাহনামা এটা একেবারেই কিতনা 

আমি সময়টা কিভাবে পার করি তো এটা আসলে আমার পক্ষে আপনাকে এক্সপ্লেইন করা সম্ভব না আমি শুধু এটুকুই বুঝি যে হ্যাঁ আমি ফুলটাইম হাউস ওয়াইফ আমি সারাদিন আমার বাচ্চাকাচ্চা সামনে আর সাথে সাথে টুকটাক বিজনেস করার চেষ্টা করি আর ইউটিউবে কাজ করার চেষ্টা করছি আমার যেটা মনে হয় প্রত্যেকটা মেয়ের প্রশ্নের সম্মুখীন কখনো না

কখনো হতেই হয় আপনারা চাইলে এভাবেও কাজ শুরু করতে পারেন একটি ঘরে বসে সবাই কিন্তু প্রায় প্রত্যেকটা মুহূর্ত সময় বাড়ে এভাবে আপনারা হাতের কাজ দিয়ে কাজ শুরু করতে পারেন এতে দেখা যায় যে অল্প কিছুদিনের ভিতরে কিন্তু আপনি শুরু করতে পারেন এটা আপনার জন্য আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করলাম শেয়ার করার জন্যই আজকে আমি তোমাকে তৈরি করেছি আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে যদি ভালো লাগে তাহলে অবশ্যই শেয়ার করবেন আর সাবস্ক্রাইব করে আমার সাথে থাকবেন সাথে থাকবেন করে দিবেন তাহলে আবার দেখা হবে কোন নতুন রেসিপি এর সাথে সে পর্যন্ত নিজের ভালো থাকবেন নিজের পরিবারকে ভালো থাকবেন আর অবশ্যই অবশ্যই আগে নিজের দিকে খেয়াল রাখবেন